শিরোনাম :
নবীনগর বাজারের উপর দিয়ে রাস্তা নির্মাণ না করার দাবিতে ও স্মারকলিপি প্রদান নবীনগরে ঐতিহ্যবাহী গ্রামীণ লাঠি খেলা দেখতে দর্শকদের উপচেপড়া ভিড়। নবীনগর উপজেলা শাখা সাংবাদিক কল্যাণ পরিষদ (বাসকপ) আংশিক কমিটি ঘোষণা ব্রাহ্মণবাড়িয়া সাংবাদিক সমিতির সভাপতি জুয়েল, সাধারণ সম্পাদক মাসুম নবীনগর সাংবাদিক সমিতির আত্মপ্রকাশ, সভাপতি কাউছার, সম্পাদক মেহেদী নবীনগরে নৌকার প্রার্থী ফয়জুর রহমান বাদলকে নির্বাচিত করার লক্ষ্যে পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত নবীনগরে যথাযথ মর্যাদায় বিশ্ব শিক্ষক দিবস উদযাপন। নবীনগরে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ ব্যবসায়ীকে আর্থিক সহায়তা প্রদান। সূর্যতরুন সমাজ কল্যাণ সংস্থা’র গুণীজন ও কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা গুণীদের কদর না করলে কখনোই সমাজে গুণীরা তৈরি হয় না:ব্যারিস্টার মোস্তাকিম রাজা চৌধুরী বর্তমান সময়ে লেখাপড়ার কোনো বিকল্প নাই:সাংসদ এবাদুল করিম বুলবুল।
শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৫:১৮ পূর্বাহ্ন

নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০ থেকে ১০০ শয্যা করা হবে; সাংসদ এবাদুল করিম বুলবুল-

প্রতিনিধির নাম / ৬৫৩ বার
আপডেট : শনিবার, ৩ জুন, ২০২৩

কাউছার আলম, নিজস্ব প্রতিবেদক।

নবীনগর একটি বৃহৎ উপজেলা, এখানে মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। দিনদিন জনসংখ্যা বৃদ্ধির ফলে প্রতিনিয়ত রোগীর চাপ বাড়ছে এবং সামনে আরো বাড়বে। কেণনা, হাতের নাগালে মানুষ কম খরচে উন্নত চিকিৎসা পেলে দূরে যেতে চাইবে না। তাই আগামী ৬ মাসের মধ্যেই নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০ শয্যা থেকে ১০০ শয্যা বিশিষ্ট করার ব্যবস্থা করা হবে বলে মন্তব্য করেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ নবীনগর আসনের সংসদ সদস্য মোঃ এবাদুল করিম বুলবুল। শনিবার সকালে নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নবনিমির্ত নতুন ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মোঃ এবাদুল করিম বুলবুল বলেন, সারা দেশের মধ্যে পরপর কয়েকবার নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স প্রথম স্থান অর্জন করেছেন। এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে তিনি চিকিৎসকসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে আহবান জানান। তিনি বলেন, গত সংসদ নির্বাচনে ভোট চাইতে গেলে এক বৃদ্ধা আমাকে জিজ্ঞাসা করেছিল ভোট শেষে এলাকায় থাকবাতো বাবা, আমি তখনই প্রতিশ্রুতি দিয়ে ছিলাম আমাকে সবসময় কাছে পাবেন এবং তারই ধারাবাহিকতায় অনন্ত সপ্তাহে দুই দিন হলেও এলাকার সাধারণ মানুষের পাশে থেকে তাদের সুখ-দুঃখে অংশীদার হই, অন্যদের মত ভোটে জিতে বিদেশ চলে যাইনি। তিনি আরো বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের উন্নয়নে অনেক কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি বাংলাদেশকে ২০৪১ সালের মধ্যে একটি সমৃদ্ধ ও উন্নত বাংলাদেশ বানাতে চাচ্ছেন। তাই বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পূর্ণরায় শেখ হাসিনা সরকারকে আবারো ক্ষমতায় আনার জন্য দেশবাসীকে আহব্বান জানান তিনি।

নবনির্মিত ভবন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ একরাম উল্লার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক ডাঃ মোঃ শাহ আলম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক জহির উদ্দিন চৌধুরি সাহান, উপজেলা চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মনির, উপজেলা নির্বাহী অফিসার একরামুল ছিদ্দিক, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ হাবিবুর রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান জাকির হোসেন সাদেক, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শিউলী রহমান, জেলা পরিষদ সদস্য নাছির উদ্দিন। এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন পর্যায়ের আরো বহু গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

নবনিমির্ত নতুন ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পূর্বে নবীনগর উপজেলা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের ব্যানারে সাংসদ মোঃ এবাদুল করিম বুলবুলকে শুভেচ্ছা জানিয়ে এক বিশাল মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি নবীনগর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গন থেকে শুরু হয়ে নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নবনিমির্ত নতুন ভবনের সামনে গিয়ে শেষ হয়। মিছিলটি রাস্তার দুপাশের মানুষদের বেশ নজড় কাড়ে।

উল্লেখ্য, নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্রেক্সে ৩১ জন ডাক্তার ও ২৭ জন নার্স নিয়ে সেবা দেয়ার লক্ষ্যে কাজ করা এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বাস্থ্য সেবায় নতুন করে যোগ করা হয়েছে মহিলাদের মাতৃত্বকালীন সিজার, চক্ষু সেবা দিতে কমিনিউটি ভিশন সেন্টার, যক্ষা রোগের কফ পরিক্ষা সেন্টার, মায়ের গর্ভে ভ্রূণের ঠিকমতো বেড়ে ওঠার ব্যাপারটা নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করার আল্ট্রাসনোগ্রাফি, হৃদরোগের জন্য কার্ডিওলজি বিভাগ, শিশু চিকিৎসার জন্য শিশু বিভাগ, সাধারন রোগীদের জন্য মেডিসিন বিভাগ ও অত্যাধুনিক জরুরি বিভাগ। ৫০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা সরকারি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ১৯ শয্যা বিশিষ্ট ভবনটি ২০১৪ সালে উদ্বোধন হলেও ৩১ শয্যা বিশিষ্ট ভবনটি ছিল জরাজীর্ণ। এতে করে স্বাস্থ্য সেবা নিতে আসা রোগীদের সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছিল উক্ত প্রতিষ্ঠানের সাথে সম্পৃক্ত ডাক্তার ও নার্সেরা। এছাড়া পুরাতন জরাজীর্ণ ভবনে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি ও ভবন ঝুঁকিতে থাকায় বেশির ভাগ রোগীদের দূর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। এসব জটিলতা নিরসনে স্থানীয় সাংসদ মোঃ এবাদুল করিম বুলবুল ২০১৯ সালে ৩১ শয্যার ৩তলা বিশিষ্ট ভবনটি নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করে। পরে ঐ বছরের শেষের দিকে সরকারি ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে ভবন নির্মাণ কাজ শুরু হয়ে ২০২৩ সালের মাঝামাঝি সময়ে এসে তা শেষ হয়।

Facebook Comments Box


এ জাতীয় আরো সংবাদ