শিরোনাম :
নবীনগর বাজারের উপর দিয়ে রাস্তা নির্মাণ না করার দাবিতে ও স্মারকলিপি প্রদান নবীনগরে ঐতিহ্যবাহী গ্রামীণ লাঠি খেলা দেখতে দর্শকদের উপচেপড়া ভিড়। নবীনগর উপজেলা শাখা সাংবাদিক কল্যাণ পরিষদ (বাসকপ) আংশিক কমিটি ঘোষণা ব্রাহ্মণবাড়িয়া সাংবাদিক সমিতির সভাপতি জুয়েল, সাধারণ সম্পাদক মাসুম নবীনগর সাংবাদিক সমিতির আত্মপ্রকাশ, সভাপতি কাউছার, সম্পাদক মেহেদী নবীনগরে নৌকার প্রার্থী ফয়জুর রহমান বাদলকে নির্বাচিত করার লক্ষ্যে পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত নবীনগরে যথাযথ মর্যাদায় বিশ্ব শিক্ষক দিবস উদযাপন। নবীনগরে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ ব্যবসায়ীকে আর্থিক সহায়তা প্রদান। সূর্যতরুন সমাজ কল্যাণ সংস্থা’র গুণীজন ও কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা গুণীদের কদর না করলে কখনোই সমাজে গুণীরা তৈরি হয় না:ব্যারিস্টার মোস্তাকিম রাজা চৌধুরী বর্তমান সময়ে লেখাপড়ার কোনো বিকল্প নাই:সাংসদ এবাদুল করিম বুলবুল।
শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:৫৮ পূর্বাহ্ন

আখাউড়ায় টাক্কা হত্যার প্রধান আসামী রাসেল মেম্বার হলেন ইউনিয়ন যুবলীগের নেতা

প্রতিনিধির নাম / ৫০৮ বার
আপডেট : মঙ্গলবার, ২ মে, ২০২৩

জুয়েল মিয়া, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি-

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় আলোচিত আব্দুল হেকিম টাক্কা হত্যার প্রধান আসামী রাসেল মেম্বারকে ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়েছে। রবিবার (৩০এপ্রিল) আখাউড়া উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক তাকজিল খলিফা কাজল ও যুগ্ম আহ্বায়ক আতাউর রাহমান নাজিমের স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উত্তর ইউনিয়ন যুবলীগের কমিটিতে মো. রাসেল মেম্বারকে ৫নং যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়েছে। কমিটি ঘোষণার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে সমালোচনার ঝড়। সুশীল সমাজের লোকজন বলেন, সমাজের এসব চিহ্নিত কুখ্যাত অপরাধীদের যদি ঐতিহ্যবাহী বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের নেতা বানানো হয় তাহলে তারা দলকেও কলংকিত করবে এবং দলের সুনাম নষ্ট করবে। অপরাধীদের আশ্রয় ও প্রশ্রয়দাতারা জনগণের কাছেও ঘৃণার পাত্র হবে।

উল্লেখ্য, গত ১৭ মার্চ শুক্রবার বিকেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার উত্তর ইউনিয়নের কল্যাণপুর গ্রামের আব্দুল হেকিম ওরফে টাক্কা (৩২) কে কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। রাতে ঢাকা নেওয়া পথে তার মৃত্যু হয়। সে ওই গ্রামের বাবুল মিয়ার ছেলে। এ ঘটনায় দুপক্ষের নারী-পুরুষসহ অন্তত আটজন আহত হন। এ ঘটনায় আব্দুল হেকিম টাক্কার মা রুপশা বেগম ৯নং ওয়ার্ডের ইউপি মেম্বার রাসেল মেম্বারসহ ১৪জনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেন। গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের আখাউড়া উত্তর ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী আনোয়ারপুর- কল্যাণপুর ৯ নং ওয়ার্ড থেকে রাসেল আহমেদ সদস্য নির্বাচিত হয়। এরপর থেকে রাসেল নিজেকে ওই এলাকার সম্রাট হিসেবে ঘোষণা করেন। সীমান্ত সংলগ্ন হওয়ায় এই এলাকার কিছু মানুষ মাদক কারবারের সাথে জড়িত। স্থানীয় মেম্বার হিসেবে প্রভাব খাঁটিয়ে রাসেল মাদক সাম্রাজ্য একক নিয়ন্ত্রণ করতে চাইত। আর এতে বাঁধা হয়ে দাঁড়ায় আব্দুল হেকিম টাক্কা। নিহত টাক্কা মেম্বারকে মাসোহারা দিতে অস্বীকার করে। এরপর থেকে রাসেল মেম্বার টাক্কাকে বিভিন্ন সময় হুমকি ধমকিসহ নানাভাবে হয়রানি করে আসছিল। এর ধারাবাহিকতায় গত তিন মাস আগে এক রাতে টাক্কাকে কল্যাণপুর গ্রামের এক প্রবাসীর স্ত্রীর ঘরে আটক করে। পরকীয়ার অভিযোগে ওই নারীসহ তাকে থানায় সোপর্দ করেন রাসেল মেম্বার।ওই ঘটনায় জেল হাজত থেকে ছাড়া পেয়ে টাক্কা বাড়িতে আসলে রাসেল মেম্বারসহ তার লোকজন বিভিন্ন সময় টাক্কাকে পরকীয়া সংক্রান্ত বিষয়ে অপমান অপদস্ত করে কথা বলতেন। আর রাসেল মেম্বারের সমস্ত অনৈতিক কর্মকান্ডে সহযোগী হলেন একই গ্রামের বাসিন্দা রনি। ঘটনার কিছু সময় আগে এই রনি নিহত টাক্কাকে ফোন করে বিভিন্ন উস্কানিমূলক কথাবার্তা বলে তাকে সাহস থাকলে গ্রামে আসার কথা বলে ডেকে এনে পরিকল্পনা মাফিক এই হত্যা কান্ড ঘটায়। গ্রেফতারের আগেই প্রধান আসামি রাসেল মেম্বারসহ পাঁচ আসামি হাইকোর্ট থেকে আগাম জামিন নিয়ে মামলার বাদী ও সাক্ষীদের হুমকি দিচ্ছে।

নিহত টাক্কার মা রোপসা বেগম রাসেল মেম্বার ও তার গংদের দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবি জানিয়ে বলেন, রাসেল মেম্বার গ্রামের মাদক কারবারীদের কাছ থেকে প্রতি সপ্তাহে এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করতো এবং মাদককারবারীদের টাকা দিতে বাধ্য করতো। রাসেল মেম্বার মাদক কারবারীদের থেকে চাঁদা তুলে মাদক ব্যবসার শেল্টারদাতা হিসেবে কাজ করতো। রাসেল মেম্বারের নেতৃত্বে তার সাঙ্গপাঙ্গরা আমার ছেলেকে নির্মমভাবে পিটিয়ে ও কুপিয়ে গুরুতর আহত করে হত্যা করে। তাছাড়া কাশেম মেম্বারের পক্ষে নির্বাচনের সময় কাজ করার কারনে রাসেল মেম্বার টাক্কার ওপর ক্ষিপ্ত ছিল।

স্থানীয় যুবলীগ সূত্রে জানা যায়, আসন্ন সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের নির্দেশে এবং জেলা যুবলীগের সম্মতিতে দলের সাংগঠনিক অবস্থা গতিশীল করতে আখাউড়া পৌর ও ওয়ার্ড যুবলীগের বর্তমান সকল কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে তিন মাস মেয়াদী আহ্বায়ক কমিটি ঘোষনা করা হয়।

আখাউড়ায় নবগঠিত যুবলীগের কমিটি গুলোতে সমাজের বিভিন্ন অবক্ষয় ও অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িতদের এবং ধর্ষণে অভিযুক্ত লোককে যুবলীগের নেতা বানানোর বিষয়ে আখাউড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক পৌরমেয়র তাকজিল খলিফা কাজল বলেন, অপরাধী যেই দলের হোক এদের কোনো দল নাই, অপরাধীর বিচার হবে। মানুষের ত্রুটি বিচ্যুতি থাকবেই। অপরাধ করলে ত্যাগ করা যাবেনা,বিচার হবে। আমার দলের লোক অপরাধ করলে সবচেয়ে বেশি শাস্তি হওয়া উচিত। কারন তার থেকে মানুষ শিক্ষা নিবে।

Facebook Comments Box


এ জাতীয় আরো সংবাদ